Home Page

অধিকার

মহ: মোতাহারুল হক

তুমি যদি ধার্মিক হও, তুমি যদি মানুষ হও! তবে পিশাচের মত কেন করো হে ? তোমার ধর্মগ্রন্থে কী বলে ? মানুষের প্রতি করো অন্যায়, সৃজন করো বিশৃঙ্খল। তুমি তোমার মত থাকো, খাও, পরিধান করো, বলো ‘জয় শ্রীরাম’ তোমায় কে বাঁধা দেয় তখন ? কেন তবে সর্পের মত করো ফোঁস-ফোঁস, করতে

পুরোটা পড়ুন

সরষে ফুল

মহিউদ্দিন বিন জুবায়েদ

চোখ জুড়ানো দৃশ্য দারুণ হলুদ সর্ষে ফুল দিগন্ত মাঠ ভরে আছে হয় না যাহার ভুল৷ ছুটছে অলি ভনভনিয়ে বসছে ফুলের পর প্রজাপতি উড়ে বেড়ায় দৃশ্য মনোহর৷ মাঠের পরে মাঠ সেজেছে সর্ষে ফুলে দেশ সে যে আমার রূপের বাংলা নেইকো যাহার শেষ৷ মন কেড়ে নেয় দুপুর বেলা সর্ষে ক্ষেতের ডাক মৌমাছিরা

পুরোটা পড়ুন

কবিতাকে ভালবেসে

শেখ সিরাজ

আমার কবিতা মনের দেয়ালে আমি রোজ রোজ আঁকি কবিতা আমার খেলার সাথী দেয় না আমায় ফাঁকি৷ সন্ধেবেলায় ঘাসের উপর যখন এসে বসি কবিতা আমায় দোল দিয়ে যায় বলে ভালোবাসি৷ আকাশ ভরা শশী তারা আমায় শক্তি দেয় কবিতা আমার ভালোবাসা মনে জায়গা নেয়৷ যখন ভাবি লিখব না আর ছেড়ে দেব সব

পুরোটা পড়ুন

এক যে ছিল নদী

উমর ফারুক

একটি যে ছিল নদী বর্ষা নেমে আসার আগেই চলত নিরবধি৷ দুষ্টু ছিল কত! ক্ষিপ্ত নদীর পাগলামীতে গ্রামবাসী শঙ্কিত৷ মাতাল হয়ে ছুটে উতাল ঢেউয়ের তালে তালে গিলতো শত ভিটে৷ বর্ষা নেমে আসে ক্রমশ তার বাড়ছে ক্ষিদে মৃত্যুগুলো ভাসে৷ আবাদ জমি খায় বক্ষ যেন একটি আকাশ চাষীরা নিরুপায়৷

পুরোটা পড়ুন

উৎসব

নাসির ওয়াদেন

এখন কোন দিকে যাই? অন্ধকার বেয়াড়া দেওয়ালের পাশে ঘিরে রেখেছে আমাকে আলোহীন এক পথে পাখি, ফুল, লতা, গাছ, ভ্রমর পরবাসী হয়ে যায় অবিশ্বাসী বাতাস শুঁকি রোজ রোজ প্রতিটি নিঃশ্বাস যেন নিঃশব্দ, কোলাহলহীন মায়াতরু… জোনাকির আলো জ্বলে নিশীথিনী আহ্বান করে সংগ্রামের ইঙ্গিতে ইঙ্গিতে লড়াই সুবাস ছড়ানো নালিধানের শিষের স্নেহ মায়া আজকাল

পুরোটা পড়ুন

ক্ষমা করো প্রভু

মুজিবুল রহমান শাহ

জীবন মরণে তোমার চরণে খোদা সেজদা করে এতিম এ ভিখারি ক্ষুধা৷ পাপী তাপি মোরা বিচিত্র ইমানহারা, অজ্ঞ-অবোধ অবহিত জীবনধারা৷ সৃষ্টিকর্তা তুমি, তুমিই এ বিশ্বদাতা একমাত্র জ্ঞাতব্য তুমি আশ্রয়দাতা৷ পশ্যামি অহম তব নাদিমধ্যমন্ত, ত্বমব্যয় শাশ্বত চিরজাগ্রত মন্ত্র৷ সমগ্র বিশ্বচরাচর তোমারি সৃষ্টি, গ্রহ নক্ষত্র সর্বে ঘূর্ণয়মান কৃষ্টি৷ সর্বত্রে পরিব্যপ্ত তোমারি মহীয়ান, অসীম

পুরোটা পড়ুন

প্রথম জলের ছোঁয়া

হামিদা কাজী

আকাশ থেকে বৃষ্টি পড়ে, গাছের উপর পাতায় সেই জল আরো অন্য পাতায় আরো নীচের ডালের পাতায়৷ এক সময় সমস্ত পাতাগুলি ভিজে যায়৷ অথচ উপর পাতাটাই আকাশের প্রথম জল পায়৷ গুহা জীবন থেকে শুরু করে মানুষ আজ সভ্যতার চূড়ায় উঠেছে৷ নিজেকে তৈরী করেছে সভ্যতার মাপকাঠিতে৷ জীবন ধারণের কত রকম উপকরণ, উপায়,

পুরোটা পড়ুন

কোন স্রোতে

এস আবুল হোসেন

কেউ যদি নিজেই লাশ হয়ে মিশে যায় নদীর গভীরে সে নদী নদী নয়৷ আসমানতো দেখেনি স্রোতের কারুকার্য স্রোতের আলিঙ্গন৷ সেই শূন্যতায় কী থাকতে পারে, স্থবিরতা? অনাচার? না ভালবাসা? ভালবাসা কোনস্রোতে ময়ূরের মত নাচে, সেটা জানে শুধু নিশিপদ্ম বাসনা৷

পুরোটা পড়ুন

অলস মায়া

রফিকুল হাসান

আমার আগের সমস্ত উচ্চারণ আজও বাতাসে বিচরণ করছে৷ আমার সমস্ত কর্ম কিম্বা প্রচেষ্টা আসমানি আলোয় উপবিষ্ট হয়ে থরে থরে সুসজ্জিত যুগযুগান্তর, তবুও আমার অন্তর নিমজ্জিত আমার আকণ্ঠ পাপের উত্তাপে আর আমি আগাগোড়া আকছার কলুষিত করছি আচার-আচরণ৷ সব ভেসে উঠবে আঁখির পলকে ঠিক যখনি পাখি নিজস্ব ঢঙে দুনিয়াদারীর রামধনু রঙ ভুলে

পুরোটা পড়ুন

ধারাবতী

মণীশ মৌলিক

কালকে তোমার আবার উজান ফেরা, কালকে জোয়ার লাগবে তোমার জলে আজকে তোমার ফুরিয়ে এল বেলা, ভাটির টান যে ফেরার কথা বলে৷ নাচের ঠামে আঁধার নামে ধীরে দেহে, চড়ায় এবং হৃদিস্থলে সৃষ্টি থেকে বন্দী হয়ে আছো অজানা এক অনন্ত শৃঙ্খলে৷

পুরোটা পড়ুন