Home Page

কালী রূপেই সাজিস
প্রণব কুমার সরকার

ছিন্ন মেয়েটা রাতের পরে একলা কাঁদে পথের ধারে একজন দুজন এগিয়ে আসে এদিক তাকায় ওদিক তাকায়, মুচকি হাসে ছুঁয়ে দিলে জাত যাবে, সম্মান যাবে বোধহয় একলাই মরুক, আমাদের তো কেউ নয়। কিছু পিশাচ গিলে খেলো কেউ বা দেখলো মজা কেউ কেউ মুখ ঘোরালো কেউ নিজেকে ভেবেই বসলো রাজা। তাদের কাছেই

পুরোটা পড়ুন

একটা তুমি চাই
নাঈম খান

আমার একজোড়া হাঁতের প্রয়োজন, যখন ভয় পাবো তখন যেন তোমার হাঁত দুটি শক্ত করে আঁকড়ে ধরতে পারি। আমার একজোড়া চোখের প্রয়োজন, যে চোখ আমার অশান্ত মনকে শান্ত করবে। সবসময় পাশে থাকার ভরসা যোগাবে। আমার একটি মুখমন্ডল চাই, যে আমাকে ভেঙ্গে পড়ার সময় সাহস যোগাবে। হাজারো চেনা রুপের মাঝে তাঁকে সবচেয়ে

পুরোটা পড়ুন

চন্দ্রিমা
সালেহা খাতুন

অপেক্ষায় আছি সাঁঝবেলা থেকে রোজ দেখি দুইটি তালগাছের ফাঁক থেকে।        চন্দ্রিমা আজ আছে শামিয়ানায় ঢেকে। আবছা আঁধার, আবছা আলো চন্দ্রিমা থাকলে সাঁঝবেলাটা লাগতো ভালো।       দূর আকাশে গাছের মাথায় উপছে পড়া আলো, মন হারানো সুর নীল দিগন্তে মেলো। ইচ্ছে করে জেগে কাটায় রাত্রী প্রহর, যখন ঝরে

পুরোটা পড়ুন

মহাত্মা গান্ধী
~সায়নদীপ পান্ডা (তৃতীয় শ্রেণী)

মহাত্মা গান্ধী তুমি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ভুলবোনা কনোদিন, মনে থাকবে চিরদিন। তুমি করেছো অহিংস আন্দোলন, প্রণাম করি তোমার চরন। ইংরেজ তোমাকে করেছে গুলি, আমি কি করে যে ভুলি। আমরা সবাই তোমাকে ভালবাসি, তুমি চলে গেছো পরোলোকে। তবুও তোমায় স্মরণ করে আসি।

পুরোটা পড়ুন

রাস্তার জলচ্ছবি
▪️রিজিয়া সুলতানা▪️

বিভীষিকাময় রাস্তার মাঝে ঝুটো স্বপ্ন দেখা মেয়েটি, রাস্তার ভিড় দেখে প্রমোদ গুনছে, যে অচেনা লোকগুলো কথাই বিদ্ধ করে বুকের ভেতরের ভয় বাড়িয়ে তুললো। রাস্তার কদর্য পঙ্কিল বিভীষিকায় আটকে পড়লো মেয়েটি। রক্তবর্ণ চক্ষু, বিভীষিকাময় দাপট দেখে কম্পিত বক্ষে বলে উঠলো আর না, বিভীষিকাময় পথের দুপাশে চলতে থাকা বাক্যবাণে জর্জরিত মেয়েতি বেঁচে

পুরোটা পড়ুন

নারী ও গনিকা
আজরা বানু

আমি তোমাকে এক মুঠো রোদ্দুর দিতে চাই নিজেকে সেঁকে নাও… .গর্ভবতী চাঁদের মতো রাতের আকাশে নিজেকে মেলে ধরতে না পারলে __ অনন্তঃ পরিযায়ী নারীর আবহে নিজেকে হারিয়ে  ফেলো না…. কে জানে কত রাত এ ভাবেই তোমাকে হেরে যেতে হবে …… নিকৃষ্টপোকামাকড়ের কাছে…..

পুরোটা পড়ুন

জীবন বয়ে চলে
▪︎রিজিয়া সুলতানা▪︎

দিগন্ত প্রসারিত মাঠ সূর্যের ক্ষীণ আলো উদ্বিগ্ন বাতাসের উত্তাল সন্ধ্যে নামার মুহূর্ত ঝিঁঝিঁ পোকার ডাক, রাস্তার ধারে গাড়ির আওয়াজ কিছু দূরে খরস্রোতা নদী বাঁধের ওপর কিছু মানুষ কোলাহল হীন নিস্তব্ধ রাত্রি। অবচেতন মনে বিভৎস স্বপ্নের আনাগোনা হৃদস্পন্দন,প্রসারিত শ্বাস, টিকটিক ফ্যানের আওয়াজ। চোখে দুঃস্বপ্নের কালো মেঘ ভোরের ঘুমে স্বস্তির আলো সকালের

পুরোটা পড়ুন

আমারই মতন
সালেহা খাতুন

  শ্রাবণের সূর্যরেখা আধো সন্ধ্যা, শ্বেত পদ্ম মেঘের হাসি আকাশের গায়ে গায়ে ছড়ানো। সীমাহীন প্রান্তরে যেন ছুটন্ত ঘোড়ায় রাজপুত্র। বরফ মেখে ভেসে আছে শান্ত নদীর ঢেউ। চোখের নিমেষে হঠাৎ গম্ভীর সমস্ত আকাশ দখল করে আঁধার। আনন্দের হাট ভেঙে, গান থামিয়ে, দিগন্ত জুড়ে প্রলয়ের বাদ্যি বাজিয়ে হু হু বাতাস বয়। আমি

পুরোটা পড়ুন

ওরা
প্রণব কুমার সরকার

ওদের নিবাস নেই, ফুটপাত ওদের ঘরের দালান; তারই মধ্যে কাটায় ওরা, ওদের নিষ্পাপ অবহেলিত প্রাণ; ওরাতো চায়না বিলাসী জীবন, চায়না ধনীর ভোগ । ওদের দেহ হয়তো নোংরা, নেই কোনো দূরারোগ । ওরাতো চায়না আকাশের চাঁদ, মাটি থেকে হাত বাড়িয়ে; খ্যাতির সস্তা বাজারে, ওরা চায়না যেতে হারিয়ে; ওরা তবে কি চায়?

পুরোটা পড়ুন

স্মৃতির দোর গোড়ায়
সালেহা খাতুন

পুরানো কাপড় সহস্র ফোঁড় স্মৃতি চোখ বোলায়, তবু কত মধুর হয়। আলো আঁধার হাত বাড়ায়, আঁধার সরে,আলো এসে দাঁড়ায়, স্মৃতির দোর গোড়ায়। জীবনের বসন্ত সব মিঠে, বাকি সময় কাটে মিছে? তেমনটা ঠিক নয়। বরং মনের কথা মনে থাক, হা হুতাশ থিতিয়ে যাক, এগিয়ে যেতে সইতে শেখাক। চোখের জলে ভিজে বালিশ

পুরোটা পড়ুন